বিহারের কিষাণগঞ্জ এলাকা থেকে নিখোঁজ হয় এক কিশোর। কোনওভাবে পুরুলিয়া (Purulia) জেলার আদ্রায় চলে এসে ছেলেটি। ছেলেটিকে আদ্রা রেল স্টেশনে (Adra Railway Station) ঘোরাঘুরি করতে দেখা যায় বৃহস্পতিবার। পুলিশ সূত্রে খবর, কিশোরের নাম দেবা পাসোয়ান। রেলওয়ে পুলিশ কিশোরটিকে উদ্ধার করে আদ্রার মণিপুরের শিশু সুরক্ষা কেন্দ্রে পাঠিয়ে দেয়। শীঘ্রই তার বাড়িতে পাঠানোর ব্যাবস্থা করা হবে বলে রেলওয়ে পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে।

Durga Puja 2022: আস্থা নেই প্রশাসনে, পুজোর আগে বেহাল রাস্তা মেরামতে নামলেন স্থানীয়রা
স্থানীয় সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সকালে আদ্রা রেল স্টেশনে (Adra Railway Station) ছেলেটিকে উদ্দেশ্যহীন ভাবে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ছেলেটিকে দেখে সন্দেহ হয় কর্তব্যরত রেল পুলিশেরও। কিশোরটিকে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে রেলওয়ে পুলিশের আধিকারিকরা। জিজ্ঞাসাবাদের পর জানা যায়, ছেলেটির নাম দেবা পাসোয়ান। সে বিহারের কিষাণগঞ্জ (Kishanganj) এলাকার বাসিন্দা। পিতৃহারা ওই কিশোর বাড়িতে কিছু না বলেই চলে এসেছে। ছেলেটি নিজের বাড়ির ঠিকানাও বলে দেয় রেলওয়ে আধিকারিকদের। এরপর RPF-এর তৎপরতায় ছেলেটির বাড়িতে যোগাযোগ করা হয়। ছেলেটির বাড়িতে যোগাযোগ করা হলে ছেলেটির মায়ের কাছ থেকে জানা যায় গত ১৭ তারিখ থেকে নিখোঁজ ছিল দেবা। এরপর কোনওভাবে সে পুরুলিয়ায় এসে হাজির হয়েছে। যত শীঘ্রই সম্ভব ওই কিশোরকে বাড়িতে পাঠানো হবে বলে জানান হয়েছে RPF-র তরফে। আপাতত শিশুটিকে আদ্রার মনিপুরে অবস্থিত শিশু সুরক্ষা কেন্দ্রের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

Balurghat News: ‘সব রাজনৈতিক দলই আদিবাসীদের ব্যবহার করে’, ক্ষোভে ফুঁসছে দিনাজপুর আদিবাসী জমি রক্ষা কমিটির
অন্যদিকে, বিহার থেকে উদ্ধার হয় উত্তর ২৪ পরগনা (North 24 Parganas) জেলার দুই ভাইবোন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, উদ্ধার হওয়া বালিকার বয়স ১৩ বছর। তার ভাইয়ের বয়স দশ বছর। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, মেয়েটিকে নাচের দলে নামানোর চেষ্টা করেছিল পাচারকারীরা। ছেলেটিকে বিক্রির পরিকল্পনা ছিল নেপালে। ১সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা থেকে দুই ভাইবোনের খোঁজ মিলছিল না। সেদিন রাতেই তাদের মা রাতে পুলিশের দ্বারস্থ হন। এরপর পুলিশ অপহরণের মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করে। শুরু হয় তল্লাশি। নিখোঁজ দুই শিশুর তল্লাশির জন্য বিশেষ দল তৈরি হয়।

Bankura News: বন্ধ আবাসন থেকে স্কুল শিক্ষিকার পচা-গলা মৃতদেহ উদ্ধার, চাঞ্চল্য
এলাকার CCTV ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখে সন্দেহজনক প্রথমে এক মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়। তাকে আদালতে হাজির করে নিজেদের হেফাজতে নেয় পুলিশ। মহিলাকে জেরা করে কিছু সূত্র পায় পুলিশ। স্থানীয় এক বাসিন্দার ফোন নম্বরের সূত্র ধরে ১৭ সেপ্টেম্বর গাইঘাটা থানার পুলিশের একটি দল বিহারে যায়। বিহার পুলিশের সহযোগিতায় একটি বাড়ি থেকে দু’জনকে উদ্ধার করে পুলিশ। বুধবার সকালে ভাইবোনকে ফিরিয়ে আনা হয়।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published.